দেশ ছাড়লেন বিমানের পাইলট সাদিয়া আহমেদ-(নতুন ঢাকা)

বাংলাদেশ

নতুন ঢাকা, ডেস্ক রিপোর্টঃ

জাল শিক্ষাসনদ জমা দেয়ার অভিযোগে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফার্স্ট অফিসার সাদিয়া আহমেদের কমার্শিয়াল পাইলট লাইসেন্স বাতিল এবং ঘটনার তদন্ত করছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। এর আগে গত মার্চ মাসের শেষের দিকে বেবিচকের শীর্ষ এক কর্মকর্তা জানান, সাদিয়া আহমেদ কোনো ফ্লাইট চালাতে পারবেন না তাকে ইতিমধ্যে গ্রাউন্ডেড করা হয়েছে। এখন আমরা তার লাইসেন্স বাতিলের প্রক্রিয়া শুরু করেছি।

সনদ জালিয়াতির ঘটনায় লাইসেন্স হারানোর পর এ ঘটনায় তদন্ত চলা অবস্থায় দেশ ছেড়েছেন বিমানের পাইলট সাদিয়া আহমেদ।

সিভিল এভিয়েশন এবং বাংলাদেশ বিমানকে ই-মেইলে চিঠি দিয়ে সাদিয়া দেশ ত্যাগের কথা জানান। ই-মেইলে তিনি দেশে নেই এবং অসুস্থ বলে বিমান কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছিলেন

গণমাধ্যমে আসা তথ্য অনুযায়ী বিমানের ফার্স্ট অফিসার সাদিয়া আহমেদ উচ্চ মাধ্যমিকের সময় মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী হওয়া সত্ত্বেও তিনি নিজেকে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হিসেবে দাবী করে জাল শিক্ষাসনদ জমা দিয়েছিলেন।

বেবিচকের নির্দেশিকায় বলা আছে যে, বাণিজ্যিক পাইলটদের অবশ্যই এইচএসসি (বিজ্ঞান) বা বাধ্যতামূলক পদার্থবিদ্যা এবং গণিতের সঙ্গে সমমানের শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে নেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সাদিয়া শহীদ আনোয়ার গার্লস কলেজ হতে মানবিক শাখা থেকে দ্বিতীয় বিভাগে পাস করেন।

কিন্তু তিনি যে সনদ জমা দেন তাতে দেখা যায় তিনি বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পাস করেছেন। সাদিয়া বিমানের চিফ অব ট্রেনিং ক্যাপ্টেন সাজিদ আহমেদের স্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *