লক্ষ্মীপুর কমলনগরে ইস্কান্দার মির্জা শামীম সমর্থকদের সাথে ফরিদুন্নাহার লাইলী সমর্থকদের সাথে সংঘর্ষে আহত ২০

রাজনীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অংশ হিসেবে কৃষকদের ধান কেটে দেওয়াকে কেন্দ্র করে লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর উপজেলায় ইস্কান্দার মির্জা শামীম সমর্থকদের সাথে, লাইলী সমর্থকদের সাথে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (২মে) দুপুরে উপজেলার তোরাবগঞ্জ উত্তর বাজারে এ সংঘর্ষ ঘটে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। ঘটনার পর তোরাবগঞ্জ বাজারে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

জানা যায়, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য ইস্কান্দার মির্জা শামীম কমলনগর এবং রামগতি উপজেলার কয়েকটি স্থানে কৃষকদের ক্ষেতের ধান কেটে দেওয়ার কর্মসূচি নেয়। মঙ্গলবার উপজেলার চরকাদিরা ইউনিয়নে এক কৃষকের ধান কেটে দেওয়ার প্রোগ্রাম ছিল তার। নির্বাচন কেন্দ্রিক সম্প্রতি তিনি লক্ষ্মীপুর-৪ আসনের বিভিন্ন এলাকায় সামাজিক কর্মকাণ্ডে আসেন।

এ সময় তোরাবগঞ্জ বাজার হয়ে চর কাদিরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফ উদ্দিন রাজন রাজুর নেতৃত্বে ইস্কান্দার মির্জার অনুসারীরা ৩ শতাধিক মোটরসাইকেল নিয়ে জেলা শহরের উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন। তাদের বহরটি তোরাবগঞ্জ বাজারে এলে আগ থেকে সেখানে অবস্থান নেওয়া লাইলী সমর্থক ইস্কান্দার মির্জা শামীম নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়৷ এক পর্যায়ে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। সেখানে ইস্কান্দার মির্জার সমর্থকদের প্রায় ২০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আশরাফ উদ্দিন রাজন রাজুর মোবাইল নম্বরে একাধিক কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরবর্তী জানতে পারি তিনি লক্ষ্মীপুর সদর হসপিটালে আহত অবস্থা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

অন্যদিকে শামীম ইস্কান্দার মির্জা বলেন, জনগণের সেবার উদ্দেশ্যে আমি মাঠে নেমেছি। কিন্তু একটি পক্ষ আমার সেবামূলক কর্মকাণ্ড ব্যাহত করতে চাচ্ছে। আজকে কৃষকের ধান কাটার প্রোগ্রাম ছিল। কলমনগর থেকে দলীয় লোকজন এসে আমাকে জেলা শহর থেকে ওই স্থানে নিয়ে যাবে। তারা আসার সময় কিছু দুষ্কৃতিকারী আমার লোকজনের ওপর হামলা করেছে। এতে আমার লোকজন আহত এবং অনেকগুলো মোটরসাইকেল ভাঙচুর হয়।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সোলাইমান বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে দুটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত আছে।

এই দিকে ইস্কান্দার মির্জা শামীম লক্ষ্মীপুর সদর হসপিটালে আহতদের দেখতে এসে তিনি বলেন, অবিলম্বে দুষ্কৃতকারীদের কে আইনের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। সদর হসপিটাল চিকিৎসাধীন আহতদের সুস্থতা কামনা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *